বাংলাদেশ, রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং, ৩রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চান্দগাঁও থানা ইসলামী ছাত্রসেনার কর্মী সম্মেলন

জঙ্গিবাদী শক্তির মুখোশ উন্মোচন করায় নুরুল ইসলাম ফারুকী জঙ্গিদের জিঘাংসার শিকার হয়েছিলেন
বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি  নঈম উল ইসলাম বলেন, জাতীয় পার্টি ও বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জাতীয় জোট আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনে সরকার গঠনের মূল শক্তি হিসেবে ভূমিকা রাখবে। দেশে বিরাজমান দ্বিদলীয় হিংসাত্মক ও জনদুর্ভোগের রাজনীতির বিপরীতে সাবেক রাষ্ট্রনায়ক হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের নেতৃত্বে সম্মিলিত জাতীয় জোট রাজনীতিতে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে বদ্ধপরিকর। তাই এখন থেকে জোটের প্রার্থীসহ বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণার মাধ্যমে জনগণের কাছে পরিবর্তনের কথা তুলে ধরতে হবে। তিনি বলেন, চট্টগ্রামের বিভিন্ন আসন থেকে ইসলামী ফ্রন্টের মোমবাতি ম্যান্ডেট নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জোর সম্ভাবনা রয়েছে। তাই আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচনে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের প্রার্থীকে বিজয়ী করতে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার নেতাকর্মিদের ভ্যানগার্ডের ভূমিকা পালন করতে হবে। তিনি আরো বলেন, ছাত্রসেনার নেতাকর্মিরা সুশৃঙ্খল ও প্রশিক্ষিত। একটি সুশৃঙ্খল ও প্রশিক্ষিত কর্মী বাহিনীই বিজয় অর্জনে সবচেয়ে বড় সহায়ক শক্তি। তিনি শৃঙ্খলা, কৌশল ও সুন্দর যুগোপযোগী কর্মতৎপরতার মাধ্যমে ইসলামী ফ্রন্টের প্রার্থীর পক্ষে এখন থেকে কাজ শুরু করার তাগিদ দেন। আজ ১০ আগস্ট বিকেলে সিএমবিস্থ একটি কমিউনিটি হলে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর আওতাধীন চান্দগাঁও থানা শাখার ইসলামী ফ্রন্টের প্রেসিডিয়াম মেম্বার নুরুল ইসলাম ফারুকীর হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে কর্মী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মুহাম্মদ জিহাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ নঈম উল ইসলাম। প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি ছাত্রনেতা মুহাম্মদ মাছুমুর রশিদ কাদেরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ শফিউল আলম, আল-আমিন বারীয়া দরবার শরীফের শাহজাদা মাওলানা সৈয়্যদুল বারী, মুহাম্মদ সেলিম উদ্দীন, মুহাম্মদ জামাল উদ্দিন খোকন, মাওলানা সিরাজুল ইসলাম ইদ্রিস, মাওলানা শহীদুল ইসলাম আরমান, ছাত্রনেতা মাওলানা শাহ জালাল। বিশেষ বক্তা ছিলেন ছাত্রসেনা নগর উত্তর সাধারণ সম্পাদক ছাত্রনেতা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম মোস্তফা, দপ্তর সম্পাদক আদনান তাহসিন আলমদার। প্রধান বক্তার বক্তব্যে মাছুমুর রশিদ বলেন, ছাত্রসেনার ইতিহাস গৌরবজ্জ্বল ইতিহাস। ছাত্রসেনা দীর্ঘ ৩৮ বছর ধরে ছাত্ররাজনীতিকে আদর্শিক ও কল্যাণধর্মী করতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। তিনি ছাত্রসেনার নেতাকর্মিদের মাদকসহ সবধরণের নেতিবাচক কাজ থেকে ছাত্রসমাজকে রক্ষা করতে জোর ভূমিকা রাখার তাগিদ দেন। বারীয়া দরবার শরীফের শাহজাদা মাওলানা সৈয়দুল বারী বলেন, জঙ্গীবাদ – দুর্নীতিমুক্ত ইনসাফ ভিত্তিক রাষ্ট্র গঠনে ইসলামী শক্তির আবির্ভাবের বিকল্প নেই। সূফিবাদী জনতা এবারের নির্বাচনে ইসলামী ফ্রন্টের প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে ঐক্যবদ্ধ ভাবে তৎপরতা চালাবে। মুহাম্মদ বেলার রেজার সঞ্চালনায় সম্মেলনে বক্তারা ইসলামী ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম মেম্বার নুরুল ইসলাম ফারুকীর হত্যাকারীদের গ্রেফতার করে যথাযোগ্য শাস্তি প্রদানের জন্য সরকারের প্রতি দাবী জানান। তারা বলেন, নুরুল ইসলাম ফারুকী দেশবিরোধী ও স্বাধীনতার বিপরীত শক্তির জঙ্গিবাদী কার্যকলাপের মুখোশ উন্মোচন করার কারণেই তাদের জিঘাংসার শিকার হয়েছিলেন। কিন্তু সরকার মুখে জঙ্গী উৎপাটনের কথা বললেও নুরুল ইসলাম ফারুকীর হত্যাকারী চিহ্নিত জঙ্গি নেতাদের বিরুদ্ধে কোন আ্যকশন না নিয়ে প্রমাণ করেছে সরকার জঙ্গীবাদ দমনে আন্তরিক নয়। সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহিন উদ্দীন, মুহাম্মদ নুরুল আমিন, নুরুল ইসলাম, আল আমিন রেযা, সোহেল আরহাম প্রমুখ।

আরো খবর

Leave a Reply