বাংলাদেশ, শনিবার, ২৩শে আগস্ট, ২০১৯ ইং, ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে রবীন্দ্র-নজরুল স্মরণে সাহিত্য ও কবি সম্মেলন

 

৩০ জানুয়ারি মঙ্গলবার বিকেলে নগরীর চট্টগ্রাম নটরডেম স্কুল এন্ড কলেজ অডিটরিয়ামে চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের উদ্যোগে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর-বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মরণে সাহিত্য ও কবি সম্মেলন চট্টগ্রাম নটরডেম স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার হোসেন মুরাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। রবীন্দ্র-নজরুল ও চট্টগ্রাম শিরোনামে একটি প্রবন্ধ পাঠ করেন চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি সোহেল মুহাম্মদ ফখরুদ-দীন। সম্মেলনের উদ্বোধন করেন পশ্চিমবঙ্গ ভারতের বিশিষ্ট চলচিত্র পরিচালক ও কবি জয়ন্ত রশিক। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অষ্ট্রিয়া প্রবাসী বিশিষ্ট আইনবিদ ড. খান মোহাম্মদ সেলিম উদ্দিন। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ভারতে প্রখ্যাত ঔপন্যাসিক ও কবি সবিতা বেগম, পশ্চিমবঙ্গ ভারতের বিশিষ্ট আবৃত্তি শিল্পী স্বপ্না দাঁ, প্রবীন সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব মোহর চাদ দাঁ, বিশিষ্ট ব্যাংকার দুলাল কান্তি বড়ুয়া, সাংবাদিক এম.এ মান্নান, মোহাম্মদ আবদুর রহিম, অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ইউনুচ কুতুবী, উপাধ্যক্ষ আবুল কাশেম, শিক্ষক রহিম উদ্দিন, অমর কান্তি দত্ত, কবি নাছির বিন ইব্রাহীম, ওবাইদুল হক মনি, কবি রেহেনা খাতুন, কবি ইভানা ওয়াজেদ, উর্বশী মল্লিক, বিবি খাদিজা, জিটন গুপ্ত, জসিম উদ্দিন প্রমূখ। সম্মেলনে বক্তারা বলেছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও কাজী নজরুল ইসলাম আমাদের অহংকারের প্রতীক। প্রতিনিয়ত বর্তমান প্রজন্মকে রবীন্দ্র সাহিত্য ও নজরুল সাহিত্যের ইতিহাস তুলে ধরার মাধ্যমে তাদেরকে সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যেতে হবে। সুস্থ সাহিত্য সাংস্কৃতির মাধ্যমে আমাদের প্রজন্মকে পরিশুদ্ধ করে বিবেকবান নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। ভাল বই পড়তে হবে, ভাল ভাল কবি সাহিত্যিকদের জীবন কর্ম তুলে ধরার মাধ্যমে বাংলা সাহিত্যের প্রসার ঘটাতে হবে। আমাদের প্রজন্মকে রবীন্দ্র-নজরুল চর্চার মাধ্যমে আলোকিত ভুবনের দিকে নিয়ে যেতে হবে। বক্তারা আরো বলেছেন, রবীন্দ্র- নজরুল বাংলা সাহিত্যকে পৃথিবীব্যাপী পরিচয়ের মাধ্যমে বাঙালী জাতিকে সমৃদ্ধ করেছে। সম্মেলনে পশ্চিমবঙ্গ ভারত থেকে আসা চার জন কবি সাহিত্যিককে চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বিশেষ স্মারক সম্মাননা প্রদান করা হয়।

আরো খবর

Leave a Reply