বাংলাদেশ, বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০১৯ ইং, ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দেবিদ্বারে বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচির ভাংচুর

দেবিদ্বার প্রতিনিধি

আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও কুমিল্লার দেবিদ্বারে একটি বিদ্যালয় উচ্ছেদের চেষ্টায় সীমানা প্রাচির ভাংচুর করেছে এক পুলিশ কর্মকর্তা। দেবিদ্বার পৌর এলাকার গোমতী আবাসিক এলাকায় স্কুল চলাকালিন সময় এ ঘটনা ঘটে।
এ সময় ওই স্কুলের দুই শতাধিক শিক্ষার্থীসহ শিক্ষক-কর্মচারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০০৮ সালে দেবিদ্বার উপজেলা সদরে পৈত্রিক সম্পত্তিতে ১৫ বছরের চুক্তিতে হামিদ চিলড্রেন গ্রেইস স্কুল নামে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন মো. মামুনুর রশিদ। ২০২৩ সালে মামুনুর রশিদের বাবার সঙ্গে করা ওই চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা। এরই মধ্যে বিদ্যালয়টি সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন লাভ করে। কিন্তু মেয়াদ শেষের আগেই ওই সম্পত্তি থেকে বিদ্যালয়টি উচ্ছেদের চেষ্টা করায় গত ১৬ জানুয়ারি বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মামুনুর রশিদ বাদী হয়ে বিদ্যালয়টির কার্যক্রম বন্ধ ও উচ্ছেদ না করার আবেদন জানিয়ে তার দুই সহোদর আবুল বাশার ও জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার স্বার্থে বিদ্যালয়ের স্থানটিতে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে পুলিশকে নির্দেশ দেন।এরপরও স্পেশাল ব্রাঞ্চ ইডিকার শাখার মালিবাগ ঢাকার পুলিশ কর্মকর্তা মো.আবু হানিফের নেতৃত্বে কয়েকজন বখাটে এসে স্কুলের সীমানা প্রচির ভাংচুর করতে থাকে। এ সময় দেবিদ্বার থানার পুলিশের সাহায্য চাইলে পুলিশ আসার খবর পেয়ে বখাটেরা পালিয়ে যায়।
মামুনুর রশিদ অভিযোগ করে বলেন, আদালতের এ নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও মামলার অভিযুক্তরা বিদ্যালয়টি ভেঙে ফেলার চেষ্টা চালায়। এতে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা চরম আতঙ্কে রয়েছে।বিষয়টি নিয়ে দৈনিক ইত্তেফাক,মানবজমিনসহ একাধিক জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় প্রতিবেদন ছাপা সত্তেও ওই পুলিশ কর্মকর্তার ক্ষমাতার বলে বখাটেরা বিদ্যালয়টি ভাংচুরের চেষ্টো চালিয়ে যাচ্ছে।

আরো খবর

Leave a Reply