বাংলাদেশ, বুধবার, ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বরগুনায় বিভীষিকাময় সিডর দিবস পালিত

কে.এম.রিয়াজুল ইসলাম,বরগুনা

২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর সিডরের তান্ডব লীলায় লন্ডভন্ড হয়ে যায় উপকুলীয় জনপদগুলো। অবর্ণনীয় ধ্বংসযজ্ঞ ঘটে এই এলাকায়। সত্তরভাগ ঘর-বাড়ি বিলীন হয়ে যায় প্রকৃতির করালথাবায়। হাজার হাজার পরিবার স্বজন হারিয়ে বিহবল। ফসলের ক্ষেত, গবাদি পশু-পাখি, পুকুর-ঘেরের মাছ, রাস্তা-ঘাটসহ সামাজিক সম্পদগুলো তছনছ হয়ে যায় আকস্মিক মহাদুর্যোগে।
২০০৭ সালের এই রাতে শতাব্দীর সবচেয়ে ভয়াল সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস ও ঘূর্নিঝড় উপকূলীয় অঞ্চল লন্ডভন্ড করে দিয়েছিল। উপকূলীয় অঞ্চলের শত শত মানুষের জীবন প্রদ্বীপ নিভে যায়। নিখোঁজ রয়েছে বহু মানুষ। প্রাণহানী ঘটেছিল হাজার হাজার মানুষের। মারা গিয়ে ছিল হাজার হাজার গবাদি পশু।
দক্ষিণাঞ্চলের জনপদগুলো ছিল মানুষের কোলাহলে মুখরিত , মাঠ জুড়ে ছিল কাঁচা-পাকা সোনালি ধানের সমারোহ মুহূর্তেই সেই জনপথের কোন চিহ্ন ছিল না। ধ্বংসের তান্ডবলীলায় পরিনত হয়েছিল মৃত্যুপুরীতে।

তাই আজ সিডরে নিহতদের গণকবরে পুস্পমাল্য অর্পণ, শোকর‌্যালী, আলোচনা সভা, দোয়া মোনাজাদের মধ্যদিয়ে বরগুনায় ‘সিডর দিবস’ পালিত হয়েছে।

সিডর দিবস উপলক্ষ্যে সকালে স্থানীয় সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর নেতৃত্বে শোকর‌্যালী বরগুনা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শোকর‌্যালীতে জেলা প্রশাসক মোঃ মোখলেছুর রহমান, পুলিশ সুপার বিজয় বসাক পিপিএমসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অংশ গ্রহণ করেন।

বরগুনা প্রেসক্লাবের ব্যবস্থাপনায় সদর উপজেলার গর্জনবুনিয়া গ্রামে ভয়াল সিডরে নিহত ১৯ কবরে ৩৩ লাশের গণকবরে পুস্পমাল্য অর্পণ শেষে গর্জনবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ জাকির হোসেন মিরাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক মোঃ মোখলেছুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আনিচুর রহমান, পৌর মেয়র মোঃ শাহদাত হোসেন, এএসপি (সার্কেল) রিপন চন্দ্র সরকার, মুক্তিযোদ্ধা সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের সভাপতি আনোয়ার হোসেন মনোয়ার, সাংবাদিক চিত্তরঞ্জন শীল, মনির হোসেন কামাল, নলটোনা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ হুমায়ুন কবির, আ’লীগ নেতা শাহ আলম, আরিফা বেগম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

আরো খবর

Leave a Reply

Close