জানুয়ারি ২৯, ২০২২ ৪:২৩ পূর্বাহ্ণ

ফটিকছড়িতে যুবলীগ নেতা আটকের প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ থানার ওসিকে পিটিয়ে আহত করেছে অবরোধকারীরা

এম. শাহনেওয়াজ নাজিম

চট্টগ্রাম জেলার ফটিকছড়িতে এমাজ উদ্দিন জেম নামের এক যুবলীগ নেতাকে আটকের প্রতিবাদে চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কে ব্যারিকেড দিয়েছে ফটিকছড়ির ছাত্রলীগ-যুবলীগের একাংশ।
শুক্রবার (১০ নভেম্বর) সকালে উপজেলার নাজিরহাট ঝংকার মোড় থেকে উপজেলা সদরের বিবির হাট বাসস্টেশনসহ বিভিন্ন স্পটে ব্যারিকেড দেয় তারা। এতে করে সড়কের উভয় পাশে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দূর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা।
জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে ফটিকছিড় থানা পুলিশ ফটিকছড়ি পৌরসভা যুবলীগ নেতা ইমাজ উদ্দিন জেমকে আটক করে। এর প্রতিবাদে শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে অবরোধকারীরা টায়ার জ্বালিয়ে ও গাছ ফেলে ব্যারিকেড দেয় চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কের শাহজাহান শাহ মাজার গেইট, নাজিরহাট নতুন রাস্তা মাথা, ঝংকার মোড়, নাজিরহাট মেডিকেল রাস্তা, কুম্ভার পাড়া, বারৈয়াহাট, বিবিররহাট, বৃন্দাবনহাট, কাজিরহাট, মির্জারহাট, নারায়নহাট, দাতঁমারা, শান্তিরহাট, হেঁয়াকো, রোসাংগীরী আজিমনগর, বিনাজুরী, নানুপুর, আজাদীবাজার, বক্তপুর, সমিতারহাট, তকিরহাটসহ ফটিকছড়ির আভ্যন্তরীণ সড়কে। এসময় যুবলীগ নেতা জেম’র মুক্তির দাবীতে বিক্ষোভ করতে দেখা যায় যুবলীগ ও ছাত্রলীগ কর্মীদের। এছাড়া বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কয়েকটি গাড়িও আটকা পড়ে চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কের পাইন্দং পেলাগাজী এলাকায়।
একাদিক যাত্রীরা জানান, অবরোধ চলাকালীন ফটিকছড়ির নাজিরহাটে ব্যারিকেডের কারণে হাটহাজারীর নয়াহাট থেকে যান চলাচল বন্ধ ছিল। এতে করে জন দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। অপরদিকে অবরোধ সমর্থনকারীরা জানায়, আওয়ামীলীগের রাজনৈতিক কোন্দলের শিকার হয়ে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে যুবলীগ নেতা জেমকে পুলিশ আটক করে।
এদিকে প্রায় ৫ঘন্টা অবরোধ শেষে পুলিশের আশ্বাসে দুপুর ১২টার পর অবরোধ প্রত্যাহার করেন বলে অবরোধ সমর্থনকারীর এক র্শীষ নেতা জানান।
এ ব্যাপারে ফটিকছড়ি থানার নবাগত (ওসি) জাকির হোসেন বলেন, জেমকে আটকের প্রতিবাদে যুবলীগ নেতাকর্মীরা সড়কে ব্যারিকেড দিয়েছে। আমরা অবরোধকারীদের সঙ্গে আলোচনার পর ব্যারিকেড সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করেছি। রাতে জ্যামকে নিজ বাড়ি থেকে পুলিশ আটক করে। এসময় তার ঘরে ২ রাউন্ড বুলেট পাওয়া যায়। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।
এদিকে ফটিকছড়ির সাবেক ওসি (বদলীকৃত) আবু ইউসুফ মিয়াকে (৫০) পিটিয়ে আহত করেছে অবরোধকারীরা। অবরোধ চলাকালীন সকাল সাড়ে ১১টার সময় উপজেলার বাবৈয়ারহাট এলাকায় অবরোধকারীরা এ ঘটনা ঘটায়। আহত ওসিকে হাটহাজারী থানার এস আই জামাল উদ্দিন অবরোধকারীদের কাছ থেকে উদ্ধার করে ফটিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দায়িত্বরত ডাক্তার অতনু চৌধুরী তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। তার ঠোঁটে ৩টি সেলাই করা হয় বলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দায়িত্বরত নিরঞ্জন সরকার বলেন।
পরে বিকাল সাড়ে ৫টায় গ্রেফতার হওয়া যুবলীগ নেতা এমাজ উদ্দিন জেম মুক্তি পান।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply