বাংলাদেশ, শুক্রবার, ২৬শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং, ১৩ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

লামায় জন গুরুত্বপুর্ন রাস্তা দখল করে শিক্ষা প্রতিষ্টানের সামনে পশুরহাট

ফরিদ উদ্দিন,লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি 

বান্দরবানের লামা পৌরসভার অর্ন্তগত,লামা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী নুনারবিল সরকারী মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রবেশ রাস্তার সামনে দীর্ঘ ১০-১৫ বছর যাবত প্রত্যেক সপ্তাহে শনিবার ও মঙ্গলবারে পশুরহাট বসিয়ে আসছে ইজারা গ্রহন করে আসছে।লামা পৌরসভার কোরবানীর ঘাট ও নিদিষ্ট গরু বাজার না থাকায় সাধারনের মাঝে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচেছ।ইতিমধ্যে কযেক জন কোমলমতি শিশু গরুর আঘাতে আহত হয়েছে।ছাত্রছাত্রীর অবিভাবক রা অভিযোগ করে কোন প্রতিকার পাইনি বলে জানিয়েছেন।
এদিকে কোরবানির পশুর ক্রয় বিক্রয় কোন নিদিষ্ট বাজার না থাকায় প্রতিদিন সড়কের ্উপরে গরু বিক্রয় হওয়ায় দুর্ঘনা নিত্যদিনের ঘঁনা হয়ে দাড়িয়েছে। দীর্ঘদিন যাবত লামার স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যাক্তিরা এই রাস্তায় প্রতিনিয়ত চলাচল করলেও কোমলমতি শিক্ষাথীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে কোন ব্যবস্থা না নেওয়ার কারনে সচেতন মহলে ব্যাপক আলোচনা ও সামলোচনা হচ্ছে। একই স্থানে লামা কেন্দ্রীয় বাস স্টেশন অবস্থিত হওয়ায় পশুরহাট বসানোর কারনে যান বাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। নুনারবিল সরকারী মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গেইট হতে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যলয় পর্যন্ত রাস্তার উপর পশুরহাট বসানো হয়। এতে করে যানবাহন চলাচলের সময় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে।
একাধিক সরকারী প্রতিষ্ঠান যথাক্রমে স্কুল উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয়, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় ও লামা খাদ্য গুদামের সামনে পশুর হাট বসানোর কারনে একাধীক এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন আমরা এ বিষয়ে প্রতিবাদ করলে ইজারা গ্রহিতারা আমাদেরকে হুমকি দেয়। সরেজমিনে পরিদর্শন কালে কয়েকজন অভিভাবক এ প্রতিবেদককে জানায় অতীতে বেশ কয়েক বার স্কুলের প্রবেশ রাস্তায় গরু ছাগলের আঘাতে আমাদের বাচ্চারা আহত হয়েছে, এখন আমরা প্রত্যেক শনি ও মঙ্গল বারে আতঙ্কিত থাকি। কখন পশুর আগাতে আমাদের বাচ্চারা আহত হয়। লামা বাস ষ্টেশন এলাকার ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান বলেন এখানে পশুর হাট বসানোর কারণে নুনাররিল স্কুলের কেমলমতি শিক্ষাথীরা সবচেয়ে বেশী দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে থাকে আরেক স্থানীয় কলেজ ছাত্র মেহেদী হাসান রনি বলেন প্রায় সাত শতাধিক ছাত্র ছাত্রী সম্বলিত বিদ্যালয়টিতে শিক্ষার্থীরা পশুর হাটের কারনে কোন প্রয়োজনীয় কাজে দোকানে এবং স্কুলে প্রবেশের রাস্তায় আসতে পারেনা।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে নুনারবিল সরকারী মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাহেদ ছরোয়ার বলেন, স্কুলের রাস্তায় পশূর হাট বসানোর বিষয়ে স্থানিয় জনপ্রতিনিধিদের অবগত করেছি যারা পশুরহাট বসায় তাদেরকে কয়েক বার নিষেধ করেছি। লামা পৌরসভার ২০১৬- ২০১৭ অর্থ বছরের পশুর হাটের ইজারা প্রহিতা সাইফুল ইসলাম বলেন আমি বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ ও লামা পৌরসভা হতে ইজারা গ্রহন করি ,কয়েক বছর আগে লামা বাস ষ্টেশন এর দক্ষিনে একটি জমিতে পৌরসভার পক্ষ হতে পশুর হাট বসানোর জন্য মটি ভরাট করে দেওয়া হয়, কিন্তু জমিতে পশুর হাট না বসিয়ে স্কুলের রাস্তায় কেন বসানো হয় জানতে চাইলে তিনি কোন সঠিক উত্তর দিতে পারেনি।

লামা পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম বলেন রাস্তার উপর পশুর হাট না বসানোর জন্য ইজারাদার কে পৌরসভা হতে নিষেধ করা হয়েছে, এরপর রাস্তার উপর পশুর হাট বসালে ইজারাদারের বিরুদ্বে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আরো খবর

Leave a Reply