রাকের আল-নুরি মসজিদ ধ্বংস, পাল্টাপাল্টি অভিযোগ যুক্তরাষ্ট্র-আইএসের

  প্রিন্ট
(সর্বশেষ আপডেট: জুন ২২, ২০১৭)

ইরাকের মসুলে বিখ্যাত আল-নুরি মসজিদ ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। ইরাকি বাহিনীর দাবি কথিত ইসলামিক স্টেট বা আইএস উড়িয়ে দিয়েছে মসজিদটি। তবে এ দাবিকে অস্বীকার করে মসজিদটি ধ্বংসের জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করেছে আইএস, যারা এই মসজিদকে তাদের কথিত ‘খেলাফতে’র প্রধান কেন্দ্র হিসেবে দাবি করতো।
ইরাকের সরকারি বাহিনী মসজিদ উড়িয়ে দেয়ার তথ্য দেয়ার পাশাপাশি মসজিদ গ্রাউন্ডের একটি ছবিও প্রকাশ করেছে যেখানে মসজিদ যেখানে ছিলো সেই স্থানটিকে একটি ধ্বংসস্তূপের মতো মনে হচ্ছে। ‘দ্যা গ্রেট মস্ক অফ আল-নুরি’ হিসেবে পরিচিত এই বিখ্যাত মসজিদটি একটি প্রাচীন স্থাপনা যেটি তার বিশেষ ধরনের মিনারের জন্য ব্যাপক বিখ্যাত ছিলো। ২০১৪ সালে এখানেই কথিত ‘খেলাফতে’র ঘোষণা দিয়েছিলো আইএস নেতা আবু বকর আল বাগদাদি।
তবে আইএস তার নিজস্ব বার্তা সংস্থা হিসেবে পরিচিত আমাকের মাধ্যমে দেয়া এক বিবৃতিতে মসজিদটি ধ্বংসের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের বোমারু বিমানকে দায়ী করেছে। ইরাকের প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল আবাদি বলেছেন ওই মসজিদটি উড়িয়ে দেয়ার ঘটনা আইএসের আনুষ্ঠানিক পরাজয়ের ঘোষণা।
উপর থেকে তোলা ছবিতে দেখা যাচ্ছে মসজিদ ও এর মিনারগুলোর বড় অংশই ধ্বংস হয়ে গেছে। ইরাকি একজন কমান্ডার বলছেন ইরাকি সেনারা মসজিদটির ৫০ মিটারের মধ্যে পৌঁছানোর পরে আইএস মসজিদটি ধ্বংস করে আরও একটি ঐতিহাসিক অপরাধ করেছে।
যুক্তরাষ্ট্রের একজন সিনিয়র সেনা কমান্ডার বলছেন আইএস মসুল ও ইরাকের বিখ্যাত একটি স্থাপনা ধ্বংস করে দিয়েছে। সেনা কর্মকর্তা মেজর জেনারেল জোসেফ মার্টিন বলেন, ‘এটি মসুল ও ইরাকের জনগণের বিরুদ্ধে একটি অপরাধ। এটি একটি উদাহরণ যে কেন এই নিষ্ঠুর সংগঠনটির সমূলে বিনাশ দরকার।’ বিবিসি ও ইত্তেফাকের সৌজন্য

০ Comments

Leave a Comment

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password