ঠান্ডা মিয়ার গরম কথা (২০১) অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সমীপে

  প্রিন্ট

মাননীয়,

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সমীপে,

শ্রদ্বেয় মুহিত ভাইজানরে,  

গরম গরম কথার শুরুতেই আমার লাখ কোটি সালাম জানিবেন। আশা করি, আল্লাহ মালিকের অপার মহিমায় ভালো থাকিয়া চলিত অর্থ বছরের বাজেট ঘোষনা করিয়া কে কী বলিতেছে তাহা লক্ষ্য করিয়া আরাম- আয়াসে দিন অতিবাহিত করিতেছেন। আমিও গ্রাম বাংলার অজঁপাড়ায় থাকিয়া পল্লী বিদ্যূতের এই আসে এই যায় বিদ্যূতের ভেল্কীবাজি সহ্য করিয়া খাইয়া না খাইয়া ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চার মতো শাহ মোহছেন আউলিয়ার উছিলায় এক প্রকার বাঁচিয়া আছি। অনেক দিন ধরিয়া ঠান্ডা মিয়ার গরম কথা নানান টেনশানে থাকিয়া লিখিতে পারি নাই। এই কারণে  ঠান্ডা মিয়ার ভক্ত ও অনুরক্তরা নাখোশ হইয়া আছে অনেকদিন। এইবার ভক্ত- অনুরক্তরা অবশ্যই আপনাকে লইয়া গরম কথা লিখিবার জন্য অনুরোধ করিয়াছে বহুবার। তাহাদের অনুরোধ রক্ষা করিতে যাইয়া হঠাৎ করিয়া নানান কিছিমের গরম কথা লিখিতেছি বলিয়া রাগ করিবেন না বরং মনোযোগ সহকারে পড়িয়া দেখিবেন ও যাহা প্রয়োজন তাহা করিবেন আর ভুল হইলে নিজগুণে মাফও করিয়া দিবেন।

মুহিত ভাইজানরে,

আপনাকে লইয়া দেশজুড়িয়া নানান সমালোচনা শুরু হইয়াছে। আনোয়ারার এক ছড়াকার লিখিয়াছেন।

এক চুলাতে যেমন তেমন দুই চুলাতে আগুন

গ্যাসের বিলে সবাই মিলে একটু দয়া মাগুন।

বিদ্যুতেরও দাম বেড়েছে ঘুম কেড়েছে চোখের

বিড়ম্বনা বাড়বে আরও নিম্ন আয়ের লোকের।

সব জিনিসেই টগবগিয়ে ছুটছে দামের ঘোড়া

তার উপরে গোদের ওপর টনটনে বিষফোঁড়া।

ফোঁড়ার বিষে খোঁড়ার মতো ভর দিয়েছি ক্র্যাচে

আটকে গেছি দাম বাড়ানোর সরকারি মারপ্যাঁচে।

এরপর একই ছড়াকার ব্যাংকের টাকা জমানোর উপর যে ট্যাক্স ধার্য করিয়াছেন তাহা লইয়া যাহা লিখিয়াছেন তাহা হইল

টাকা যদি থাকে তোমার

চুবিয়ে রাখ ট্যাংকে

দোহাই তবু কেউ যেও না

রাখতে টাকা ব্যাংকে।

ব্যাংকে গেলে শুল্ক দিয়ে

কমবে পুঁজি-পাট্টা

খোদার কসম সত্যি কথা

একটুও নয় ঠাট্টা।

মুহিত ভাইজানরে,

উঠিয়াছি নৌকায়

হতে নদী-খেয়া পার

বিশ্বাসও রাখিয়াছি

শুনে কথা সে আপার।

আজ দেখি নৌকায়

ধরিয়াছে হাল

সে আপা নয় আপা নয়

মাথামোটা মাল সে।

মাল যদি হাল ধরে

তরী হবে বেসামাল

টাল খাওয়া মালটাকে

দে সামাল দে সামাল। এইরুপে গোটা দেশে আপনাকে লইয়া তোলপাড় শুরু হইয়াছে।

ভাইজানরে

আপনি হইলেন, এই দেশের দীর্ঘদিনের অর্থমন্ত্রী।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার খুবই কাছের ও সরকারের প্রভাবশালী ব্যক্তি। এই দেশের জনগণ এইবার বাজেটের পর শান্তির বাতাস পাইবে বলিয়া ভাবিয়াছিল। কিন্তু একি হইল? নৌকার উপর মানুষ কীভাবে ভরসা করিবে? বাজারে চাল, মাছ ও মাংসে আগুন লাগিয়াছে।দেশে হু- হু করিয়া চালের দাম বাড়িতেছে। ১০ কেজি আলু দিয়া ১ কেজি চাল মিলে। ২ চুলা গ্যাস ৯৫০ টাকা আর একচুলা হইলে ৯০০ টাকা।  আর বেশী কিছু বলিলাম না। এ কেমন বাজার ও নীতি বৈষম্য।বাজার বৈষম্য রোধ করিতে যাহা যাহা প্রয়োজন তাহা করিবেন নইলে নৌকার উপর মানুষ ভরসা করিবে মনে করিলেও তাহা মস্ত বড় ভুল হইবে। কথাটা হালকা মনে করিবেন না।

আজ আর না। আপনার মঙ্গল ও সুস্বাস্হ্য কামনায় । ইতি

আপনারই গ্রাম বাংলার অখ্যাত

                                                                                                ঠান্ডা মিয়া

                                                                                            গ্রন্হনা: ম. আ. হ

তারিখ ৫জুন ২০১৭

 আগামী সংখ্যায় শেখ হাসিনা সমীপে ঠান্ডা মিয়ার গরম কথা (২০২) সম্প্রচার করা হইবে।

 

০ Comments

Leave a Comment

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password