বাংলাদেশ, শনিবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

চাতুরী চৌমুহনী বাজার দক্ষিণ চট্টগ্রামের প্রসিদ্ধ একটি নাম

 

আবদুল মান্নান

নব্বই দশকের শুরুর দিকে চাতরী চৌমুহনী বাজার এর যাত্রা শুরু। সি.ইউ.এফ.এল সড়কের বদান্যতায় এ বাজার। পি.এ.বি. সড়কের চাতরী এলাকায় এ সড়কের সংযোগস্থলে চাতরী চৌমুহনীর সৃষ্টি। ইতি পূর্বে এটি ছিল ৮ নং চাতরী ইউপি-র চলাচলের সংকীর্ণ মেটোপথ। সপ্তাহ ২ দিন নির্ধারিত সময়ে অর্থাৎ শনি ও মঙ্গলবার এ হাট বসত। পি.এ.বি সড়কের বিস্তৃতি। চন্দনাইশ-বরকল-আনোয়ারা সড়ক। কাফকো, সিইউএফল সারকারখানা, কেইপিজেড ইত্যাদি অবস্থানের কারণে দিন দিন লোক সমাগম বাড়তে থাকায় এটি নিয়মিত বাজারে রূপ নেয়। অর্থাৎ সপ্তাহে সাতদিন এ বাজার চলে। প্রতি বছর নিলাম ডাক হয়। প্রথম থেকে এ পর্যন্ত রাজস্ব খাতে কয়েক কোটি জোগান দেয় এ বাজার। তবে বিষ্ময়ের বিষয় হলো এখনো পর্যন্ত এ বাজারের ইঞ্চি পরিমাণ নিজস্ব জায়গা নেই। অনেকটা পরের ধনে পোদ্দারী।

উপজেলা প্রশাসন তথা সংশ্লিষ্ট মহল এগিয়ে আসেনি বাজারের জন্য নিজস্ব জায়গায়। সম্পূর্ণ চলাচলের রাস্তার উপর এ বাজার। তাই নিত্য যানজট লেগেই থাকে। বার্ষিক নিলাম ডাক অত্যাধিক হওয়ায় অর্থাৎ চল্লিশ লক্ষাধিক টাকা হওয়ায় ইজারাদারদের লোকজন (হাছিল আদায়কারী) কাঁচা বাজার, মাছ বাজার, ভাসমান ব্যবসায়ীদের নিকট হতে জোর পূর্বক অত্যাধিক হাছিল আদায় করে। এরই সুবাধে কাঁচা বাজার মাছ বাজার ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে দ্রব্য মূল্য বাড়িয়ে নেয়। রাস্তার ভাসমান ব্যবসায়ীদের কারণে যানজন প্রকট আকার ধারণ করে। যানজটের কাহিল অবস্থায় মাঝে মাঝে উপজেলা প্রশাসন অভিযান চালিয়ে ভাসমান ব্যবসায়ীদের তাড়িয়েও দেয়। পরক্ষণে আবার হাছিল আদায়কারীরা হাছিল আদায়ের নিমিত্তে ভাসমান ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের পসরা বসাতে সহযোগিতা করে। পুনরায় ভাসমান ব্যবসয়ীদের দখলে চলে যায়। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী, বাজার ব্যবহারকারী, ব্যবসায়ীসহ সকল স্তরের লোকজন সহসা বাজারের পণ্য একটি নিজস্ব জায়গা অধিগ্রহণ করে স্থায়ী বাজারের জন্য উপজেলা প্রশাসনের নিকট দাবী জানায়। অধিগ্রহণের জন্য এখনই উপযুক্ত সময়। যেহেতু পাশে কর্ণফুলী টার্নেল সংযোগ সড়কের জন্য জমি অধিগ্রহণ চলছে। এখনো জমির মূল্য সহনীয় পর্যায়ে। এলাকাবাসী মনে করে কর্ণফুলী টার্নেল সংযোগ সড়কের মূখে দক্ষিণ পার্শ্বে কালাবিবির দীঘির মোড় থেকে টার্নেল সংযোগ সড়কের মধ্যবর্তী স্থানে বাজারের জন্য অত্যন্ত চমৎকার।

আরো খবর

Leave a Reply