বাংলাদেশ, শনিবার, ২০শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

আদালতের আদেশও মানছে না লোহাগাড়া থানা পুলিশ !

মামলাটি এখনো এজাহারভুক্ত করেনি

গত রমজানের ঈদের পরের দিন লোহাগাড়ার পশ্চিম কলাউজানের সুশিক্ষিত পরিবারটি বাপ-দাদার কবর জেয়ারত করার জন্য বাড়ীতে যায়। ওৎ পেতে থাকে শত্রুরা। সুযোগ পেয়ে ধাড়াঁলো চাইনিছ কুড়াল,রড, দা-ছুরি ও কিরিছ দিয়ে তাদের মাথায় কোপ ও এলোপাতারী আঘাত করে তাদের । ক্ষত বিক্ষত হয়ে ৫ জন লোহাগাড়া হাসপাতালে স্থানীয়দের সহযোগিতায় প্রাথমিক চিকিৎসা নেয় । তন্মধ্যে ২জন লোহাগাড়া হাসপাতালে চিকিৎসা নিলেও বাকী ৩ জন আলী আহমদ, কামাল উদ্দিন, আবদুল শুকুর গুরুতর জখম হওয়ায় চিকিৎসা নিতে হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ।

সূত্রমতে, ১৭ জুন ২০১৮ আনুমানিক সন্ধ্যা ৭টার দিকে পশ্চিম কলাউজান বাংলাবাজারের উত্তর পর্শ্বে রাস্তার উপর এই রক্তক্ষয়ী ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, ওই ঘটনায় বদরুল করিম চৌধুরী, আলী আহমদ, কামাল উদ্দিন, আবদুল শুকুর ও আবু তৈয়ব প্রতিপক্ষ শত্রুর সশস্ত্র হামলার শিকার হন। প্রতিপক্ষ শক্ররা যথাক্রমে কামাল হোসেন,মরিয়ম খানম বকুল, জিকু, রিয়াদ, জোহাইর,ওমায়দ গং রা তাদের সাথে থাকা টাকা ছিনিয়ে নেয় ও মোবাইল সেটগুলো ছিনিয়ে নেয় ও ভেঙ্গে দেয়। আহতেরা মাথায়, কপালে, ঠোঁঠে ও শরীরের বিভিন্ন অংশে রক্তাক্ত হন।

স্থানীয় ইয়াবা বকুলের ইন্ধনে ও প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় সশস্ত্র অবস্থায় এইসব ঘটনা ঘটায়। ইয়াবা বকুল জেল জরিমানা ভোগকারী এক দুশ্চরিত্রা ও সন্ত্রাসী মহিলা বলে স্থানীয় সুত্রে খবর পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে চীফ জুডিশ্যিাল ম্যাজিস্ট্রেট চট্টগ্রাম আদালতে বদরুল করিম চৌধুরী বাদী হয়ে সি আর মামলা নং-১৭১/২০১৮ইং দায়ের করেন যাতে বিজ্ঞ আদালত ওসি লোহাগাড়া থানাকে সরাসরি এজাহার হিসাবে গ্রহন করার নির্দেশ দেন গত ২৮/৬/২০১৮ইং তারিখে। কিন্তু তিনি অজানা ও রহস্যজনক কারণে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশকে অবজ্ঞা করে উক্ত মামলাটি অদ্যাবধি এজাহার হিসেবে গ্রহন করেন নি। এই বিষয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে ওসি লোহাগাড়া বাদী-বিবাদীর সাথে যোগাযোগ করে খবর সংগ্রহ করার কথা বলে ব্যস্ততা দেখিয়ে লাইন কেটে দেন। কথা বলে এই প্রতিনিধির  মনে হলো ওসি সাহেবের এই বিষয়ে ভাবার সময় নেই মোটেই, অন্য কাজে প্রচণ্ড ব্যস্ত দেখান তিনি।

আরো খবর

Leave a Reply