রাইফার হত্যাকারীর বিচার হবে কি? 

  প্রিন্ট
(Last Updated On: জুলাই ১, ২০১৮)

 

কাজী ইব্রাহিম সেলিম

প্রতিবাদ আমরা করেই যাচ্ছি বারবার। কিন্তু কি লাভ হবে সেই প্রতিবাদ করে? যেই প্রতিবাদের কোনো ফলই পাওয়া যায় না। ভুল চিকিৎসায় রোগী মারা যাচ্ছে প্রতিনিয়তই। কিন্তু চিকিৎসকের দৃষ্টান্তমূলক কোনো শাস্তিই হয় না। ভুল চিকিৎসায় সাধারণ মানুষ মারা গেলে অসহায় পিতা-মাতা নিশ্চুপ থাকে তাই বিষয় গুলো অনেকের অজানা থাকে। তবে কিছু মানুষ ভুল চিকিৎসায় মারা যাওয়ার পর তীব্র প্রতিবাদের ঝড় উঠে। এতে করে বিষয়টা জানাজানি হয়। কিন্তু দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়ার পূর্বেই তা দামাচাপা দেওয়া হয়। এ রকম ঘটনায় অপরাধের মাত্রা দিন দিন বেড়েই চলছে। এ অবস্থায় সরকার যদি ভুল চিকিৎসকের ঠিক মতো বিচারের ব্যবস্থা না করেন তাহলে ভুল চিসিৎসকের সংখ্যা দিন দিন বাড়তেই থাকবে। মানুষকে হারাতে হবে তার প্রিয় স্বজনদের। শুক্রবার রাত ১১ টায় নগরীর ম্যাক্স হাসপাতালে চিকিৎসক ও নার্সের ভুল চিকিৎসায় মারা যান রাইফা খান নামক একজন শিশু কন্যা। রাইফার বাবা রুবেল খান একজন সাংবাদিক। অভিযোগ উঠেছে রাত ৯-১০ টার সময় হাসিখুশি থাকা রাইফাকে দায়িত্বরত চিকিৎসকের পরামর্শে নার্স রাত ১১ টায় ভুল ইঞ্জেকশান দেয়ার পরেই একটি খিঁচুনি দিয়ে সে মৃত্যুবরণ করেন। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জনসাধাণর তীব্র ক্ষোভ জানান ওই চিকিৎসকের প্রতি। তারা শিঘ্রই রাইফার হত্যাকারী চিকিৎসকের দৃষ্টান্তমূলক শান্তির দাবী জানান। এদেশে চট্টগ্রাম আদালতের উচুঁ মাপের বিচারককে চমেকের এক চিকিৎসক বলেছিলেন ওই বিচারক মরে গেলে আমার কি যায় আসে। বিচারক মামলা করলেও বিচার হয়নি। কারণ চিকিৎসকের সংগঠন আর আইনজীবীর সংগঠন মিলে, যাই হোক এক কথায় বলা যায় এদেশে অপরাধীকে প্রশ্রয় দেওয়ার মতো ব্যক্তি আছে বিধায় ওই চিকিৎসকের কোনো বিচার হয় নি। সমালোচনার ঝড় উঠেছিলো একজন বিচারকের সাথে একজন চিকিৎসক এভাবে আচরণ করলে সাধারণ মানুষের সাথে কি রকম আচরণ করা হয়?

কাজী ইব্রাহিম সেলিম, কবি ও সাংবাদিক, সভাপতি, ভুক্তভোগী, সচেতন শিক্ষার্থী পরিষদ, চট্টগ্রাম।

০ Comments

Leave a Comment

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password