বাংলাদেশ, শনিবার, ২০শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

নাগেশ্বরীতে বালাঘাট ব্রীজের মোকা ভেঙ্গে যাওয়ায় দুর্ভোগে ১৫ গ্রামের ৪০হাজার মানুষ

 

সাইফুর রহমান শামীম,কুড়িগ্রাম
কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার পৌরসভা এলাকায় বালাঘাট ব্রীজটির মোকা ভেঙ্গে একদিকে হেলে গেছে। পাশাপাশি ব্রীজের ভাঙ্গা মোকায় কাঠ বসিয়ে জীবনের ঝুকি নিয়ে পাড়াপাড় করছে লোকজন। এ অবস্থায় নিবিঘ্নে যাতায়াত ও মালপত্র আনা-নেয়ায় দুর্ভোগে পড়েছে প্রায় ১৫ গ্রামের প্রায় ৪০ হাজার মানুষ। এলাকাবাসী জানায়, দেড়যুগ আগে নাগেশ্বরী পৌরসভার গোদ্ধারের পাড়, মোছলিয়া ও মেছনি বিলের সংযোগ স্থলে বালাঘাট ব্রিজটি নির্মান করা হয়। ওই ব্রীজটি দিয়ে উপজেলার কানিপাড়া, জোলাপাড়া, টাপুরচর, নেয়াখালীপাড়া, সাতানিপাড়া, হিন্দুপাড়া, মুন্সীটারী, পঞ্চায়েতপাড়া, ফকিকের হাট, নেওয়াশী, খরিবাড়ী গ্রামের মানুষ যাতায়াত করেন।
গত বন্যার সময় ব্রীজটির দুই মোকার সংযোগ সড়ক ভেঙ্গে ব্রীজটি হেলে পরে। ফলে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে ১৫ গ্রামের প্রায় ৪০ হাজার মানুষ। স্থানীয়রা ভাঙ্গা সংযোগ সড়ক ও ব্রীজের মোকায় কাঠের চরাটি দিয়ে পাড়াপাড়ের ব্যবস্থা করলেও তা অত্যন্ত ঝুুকিপুর্ণ। তারপরেও প্রতিদিন দুর্ঘটনার আশংকা নিয়েই ব্রীজের উপর দিয়ে যাতায়াত করছেন পথচারী, সাইকেল আরোহি ও রিকসা চালকরা। তবে ভারী কোন মাত্র ব্রীজের উপর দিয়ে আনা নেয়া করতে পারছেন না কেউ। এলাকাবাসীর দাবী পুরাতন ব্রীজটি ভেঙ্গে ফেলে নতুন ব্রীজ নির্মাণ করা হোক।
মোছলিয়া গ্রামের আবেদ আলী জানান, এই ব্রীজের কারনে আমরা এলাকাবাসী যানবাহন নিয়ে ভালোভাবে চলাফেলা করতে পারি না। কোন মালামাল আনা নেয়া করতে পারি না। আমরা এলাকাবাসী দাবী জানাই দ্রুত এখানে একটি নতুন ব্রীজ নির্মাণ করা হোক।
কানিপাড়া গ্রামের শামসুল হক বলেন, আমরা গত বন্যার পর থেকে নাগেশ্বরী পৌরসভার মেয়রকে ব্রীজ নির্মার্ণের কথা জানাচ্ছি। কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না। এই ভাঙ্গা ব্রীজে বিভিন্ন সময় দুর্ঘটনা ঘটছে। বিশেষ করে রাতের বেলা। ব্রীজটির মোকা ভেঙ্গে যাওয়ায় আমাদের যানবাহন দিয়ে জিনিষপত্র আনা নেয়া করতে ভীষন অসুবিধা হচ্ছে।
এ ব্যাপারে নাগেশ্বরী পৌরসভার পৌর মেয়র আব্দুর রহমান জানান, ব্রীজটির মোকা ভেঙ্গে গিয়ে লোকজনের চলাচলে অসুবিধা হচ্ছে। আমি ব্যবস্থা নিতে প্রকৌশলীকে বলেছি। চলতি অর্থ বছরে এখানে নতুন ব্রীজের কাজ হয়ে যাবে আশা করছি।

আরো খবর

Leave a Reply