বাংলাদেশ, শনিবার, ২০শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

যারা মাঠে ময়দানের কর্মী তাদের দিয়েই কমিটি গঠন করা উচিত -ইসহাক মিয়া

চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে গুনীজন সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সংগঠনের সভাপতি নমিতা আইচ এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদিকা অধ্যাপিকা রেখা আলমের সঞ্চালনায় গত ২১ ফেব্রুয়ারি নগরীর থিয়েটার ইউনিষ্টিটিউট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সংবর্ধিত প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা, বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ, সাবেক গণপরিষদ ও সংসদ সদস্য জননেতা ইসহাক মিয়া। উক্ত অনুষ্ঠানে উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র (২) মহিলা কাউন্সিলর জুবাইরা নার্গিস খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চের সম্পাদক ও কাজেম আলী স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি সৈয়দ উমর ফারুক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাচ্য ও পালি ভাষা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. জিনবোধী ভিক্ষু, সংবর্ধিত অতিথি বেগম মুশতারি শফির সন্তান ডা. তাহাসিন শফি, চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি তপতী সেন গুপ্তা, সহ-সভাপতি হাসিনা জাফর, অঞ্জলী কুন্ড, যুগ্ম সম্পাদক কাউন্সিলর আঞ্জুমান আরা বেগম, সাংগঠনিক সম্পাদিকা মজিনা আক্তার লুসি, সহ-সম্পাদিকা নব্যুয়াত আরা সিদ্দিকা, মিলি চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদিকা নাসরিন আক্তার নাহিদা, প্রচার সম্পাদিকা রুমা দাশ, সদস্য সেলিনা আক্তার, জহুরা বেগম, দিপ্তী মজুমদার, তারা বানু, তাসলিমা, ফেরদৌসি মুন, জহুরা ফাতেমা প্রমুখ।

উক্ত অনুষ্ঠানে জননেতা ইসহাক মিয়া ও বেগম মুশতারি শফিকে গুণিজন সম্মাননা স্মারকে ভূষিত করা হয়। অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি, নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন করা হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আবৃত্তিকার দেবাশীষ রুদ্র, রুনা চৌধুরী, সাইদুল করিম সাজু, জাহান আরা টিনা। সভার শুরুতে ভাষা শহীদদের স্মরণে মোমবাতি প্রজ্বলন করে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। সভায় সংবর্ধিত প্রধান অতিথি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য ইসহাক মিয়া বলেন, মহান ভাষা দিবস বাঙালী জাতির একটি গৌরব উজ্জ্বল ইতিহাস। ভাষার জন্য সেদিন আমার ভায়েরা নিজের বুকের তাজা রক্ত বিসর্জন দিয়ে মাতৃভাষা বাংলাকে প্রতিষ্ঠা করেছেন। তাদের আন্দোলনের ফলে আজকের এই স্বাধীন বাংলাদেশ। আমি মনে করি যারা রাজনীতির মাঠে ময়দানে লড়াই করে নেতা হন তারাই প্রকৃত অর্থে দেশের সেবক হয়ে উঠেন, আমাদের সংগঠনে ভূঁইফোড় কোন নেতার কদর নেই। আপনারা যারা দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতি করে আসছেন তাদের সাথে আমি আছি এবং আমি বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আপনাদের পাশে থাকার অনুরোধ জানাব। দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চ সম্পাদক সৈয়দ উমর ফারুক বলেন, যাদের রাজনীতিতে মাঠের অভিজ্ঞতা নাই তারা কখনো নেতৃত্ব দেওয়ার অধিকার রাখেন না। এছাড়া আওয়ামী লীগে উত্তরাধিকার সূত্রে নেতা হওয়ার সুযোগও নেই। বর্তমান মহিলা আওয়ামী লীগের এই কমিটির সকল নেতা কর্মী অতীতে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে অবদান রেখেছেন। তাই আমার বিশ্বাস এই কমিটিই কেন্দ্রীয় অনুমোদন পাওয়ার অধিকার রাখে। সভাপতির ভাষণে নমিতা আইচ বলেন, আমরা অনেক ত্যাগ ও সাধনা করে মহিলা আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করেছি। আজকে যারা আমাদের সাথে আছেন তারা সবাই ত্যাগী নেতা ও কর্মী। অথচ একটি গোষ্ঠী ষড়যন্ত্র করে কমিটি হাইজ্যাক করার চেষ্টা করেছে। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়ে একটি শক্তিশালী ও ত্যাগী কর্মীদের নিয়ে কমিটি গঠনের অনুরোধ জানাব।

আরো খবর

Leave a Reply