মেসির হ্যাটট্রিকে সরাসরি বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা

  প্রিন্ট

বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের খেলায় ইকুয়েডরকে হারিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপে সরাসরি খেলা নিশ্চিত করেছে আর্জেন্টিনা। মেসির দুর্দান্ত হ্যাটট্রিকে ইকুয়েডরকে ৩-১ গোলে হারিয়ে আর্জেন্টিনা।

দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্বের ৩ ড্রয়ে শেষ রাউন্ডের আগে ষষ্ঠ স্থানে থাকা আর্জেন্টিনা ছিল ভীষণ শঙ্কায়। ম্যাচটি আবার সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ২ হাজার ৮৫০ মিটার উঁচুতে কিটোয়ে যেখানে ২০০১ সালের পর জেতেনি আর্জেন্টিনা। অসাধ্য সাধনের ভার ছিল অধিনায়ক আর দলের সেরা খেলোয়াড় মেসির কাঁধেই। বার্সেলোনার এই ফরোয়ার্ডও দেখালেন কেন তাকে বলা হয় বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার।
মেসির হ্যাটট্রিকে সরাসরি বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা

বাংলাদেশ সময় বুধবার ভোরে শুরু হওয়া ম্যাচের ৪০ সেকেন্ডের মধ্যে পিছিয়ে পড়ে আর্জেন্টিনা। লম্বা বাড়ানো বল ধরে সতীর্থকে হেডে বাড়িয়েছিলেন দিয়েছিলেন রোমারিও ইবাররা। বল ফেরত পেয়ে কোনাকুনি শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন এই মিডফিল্ডার। বিশ্বকাপ ভাগ্য নিজেদের হাতে রাখতে হলে আর্জেন্টিনার তখন কমপক্ষে দুই গোল করতে হতো।
মেসির হ্যাটট্রিকে সরাসরি বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা

মেসির নৈপুণ্যে সমতা ফেরাতে দেরি হয়নি আর্জেন্টিনার। দ্বাদশ মিনিটে বাঁয়ে আনহেল দি মারিয়াকে বল বাড়িয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন বার্সেলোনার ফরোয়ার্ড। বল ফেরত পেয়ে প্রথম ছোঁয়াতেই বাঁ পায়ের বুটের সামনের অংশ দিয়ে টোকায় জালে পাঠান তিনি।
মেসির হ্যাটট্রিকে সরাসরি বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা

৮ মিনিট পর একক প্রচেষ্টায় আর্জেন্টিনাকে এগিয়ে দেন মেসি। ডিফেন্ডারদের ভুলে বল পেয়েছিলেন। কিন্তু তার পরও অনেক কিছু করার বাকি ছিল। বল নিয়ন্ত্রণে রেখে ডি-বক্সে ঢুকে উপরের বাঁ-কোণ দিয়ে জালে পাঠান পাঁচবারের বর্ষসেরা এই ফুটবলার।

বিরতির পর শুরুর দিকে বার বার আক্রমণে উঠে অতিথিদের চাপে রেখেছিল একুয়েডর। তবে ৬২তম মিনিটে হ্যাটট্রিক করে যেন সব অনিশ্চয়তার অবসান ঘটালেন মেসি।
মেসির হ্যাটট্রিকে সরাসরি বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা

বল পেয়েছিলেন প্রায় ৪০ গজ দূরে। সামনে ছিলেন প্রতিপক্ষের তিন খেলোয়াড়। বল নিয়ে এগিয়ে পায়ের জাদু আর ক্ষিপ্রতায় একজনকে ফাঁকি দিলেন। আরেকজন বাধা দিতে এগিয়ে আসতেই একটু এগিয়ে থাকা গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে বল পাঠালেন জালে।
মেসির হ্যাটট্রিকে সরাসরি বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা

অনেকেই বলেছিল এটা হতে যাচ্ছে মেসির শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ। আর্জেন্টিনা অধিনায়ক জবাবটা তোলা রেখেছিলেন যেন এই ম্যাচের জন্য। নিজেদের ম্যাচটা জিততে পারলে অন্তত পঞ্চম স্থানে থেকে প্লে-অফ খেলাটা নিশ্চিত ছিল আর্জেন্টিনার। তবে মেসির দুর্দান্ত এই নৈপুণ্যের দিনে আর্জেন্টিনার পক্ষে গেল ব্রাজিল-চিলি আর কলম্বিয়া-পেরু ম্যাচের ফলও। তাই শেষ পর্যন্ত তৃতীয় হয়ে সরাসরিই বিশ্বকাপে গেল ১৯৭০ সালের আসরে শেষবার খেলতে না পারা আর্জেন্টিনা।এবিনিউজ থেকে

০ Comments

Leave a Comment

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password